চলতি বছরের ১ জুলাই থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) দেশগুলোয় সয়াবিনের ২০১৮-১৯ বিপণন মৌসুম শুরু হয়েছে। মৌসুমের প্রথম ১৬৩ দিনে (১ জুলাই-১০ ডিসেম্বর) এসব দেশে কৃষিপণ্যটির সম্মিলিত আমদানি আগের মৌসুমের একই সময়ের তুলনায় ৭ শতাংশ বেড়েছে। ইউরোপীয় কমিশনের (ইসি) সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। খবর এগ্রিমানি ও বিজনেস রেকর্ডার।

ইসির প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮-১৯ মৌসুমের ১ জুলাই থেকে ১০ ডিসেম্বর সময়ে আন্তর্জাতিক বাজারে থেকে ইইউভুক্ত ২৮ দেশে সব মিলিয়ে ৫৯ লাখ টন সয়াবিন আমদানি হয়েছে, যা আগের মৌসুমের একই সময়ের তুলনায় ৭ শতাংশ বেশি। ২০১৭-১৮ বিপণন মৌসুমের প্রথম ১৬৩ দিনে ইইউভুক্ত দেশগুলো মোট ৫৫ লাখ টন সয়াবিন আমদানি করেছিল। সে হিসাবে এক বছরের ব্যবধানে এসব দেশে কৃষিপণ্যটির সম্মিলিত আমদানি বেড়েছে চার লাখ টন।

সয়াবিন উৎপাদনকারীদের বৈশ্বিক তালিকায় ইইউভুক্ত দেশগুলোর সম্মিলিত অবস্থান বিশ্বে ১১তম। কৃষিপণ্যটির আমদানিকারকদের বৈশ্বিক শীর্ষ তালিকায় ইইউভুক্ত দেশগুলো সম্মিলিতভাবে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। মার্কিন কৃষি বিভাগের (ইউএসডিএ) ফরেন এগ্রিকালচারাল সার্ভিসের পূর্বাভাস অনুযায়ী, ২০১৮ সালে ইইউভুক্ত দেশগুলো সব মিলিয়ে ১ কোটি ৫৮ লাখ টন সয়াবিন আমদানি করতে পারে, যা আগের বছরের তুলনায় ১২ দশমিক ৬ শতাংশ বেশি।

এদিকে চলতি মৌসুমের প্রথম ১৬৩ দিনে এসব দেশে সব মিলিয়ে ৯১ লাখ টন ভুট্টা আমদানি করেছে বলে জানিয়েছে ইসি, যা আগের মৌসুমের একই সময়ের তুলনায় ৩৭ শতাংশ বেশি। ২০১৭-১৮ মৌসুমের একই সময়ে ইইউভুক্ত দেশগুলোয় ৬৬ লাখ টন ভুট্টা আমদানি হয়েছিল।

 

বাংলাবিজনিউজ/আরাফ