অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) নলেজ ফর ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পের আওতায় রোববার পরিকল্পনা কমিশনের এইসি সম্মেলনকক্ষে ‘দক্ষিণ-দক্ষিণ ও ত্রিপক্ষীয় সহযোগিতা: বাংলাদেশ ও বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

 

সেমিনারে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি এবং জাতিসংঘের দক্ষিণ-দক্ষিণ সহযোগিতা সংক্রান্ত উচ্চ পর্যায়ের কমিটির সাবেক সভাপতি প্রফেসর ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের জাতিসংঘ অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব শামীমা নার্গিসের সভাপতিত্বে এ সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ মেজবাহউদ্দিন। বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়ক রবার্ট ওয়াটকিনস এবং উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা ইউএনডিপি, ইউএনএফপিএ, আইএলও, ইউএনসিডিএফ, এফএও এবং ইউনিসেফের প্রতিনিধিরা সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন।

সেমিনারে মূল বক্তব্যের ওপর প্যানেল আলোচক হিসেবে আলোচনা করেন এনজিও অ্যাফেয়ার্স ব্যুরোর মহাপরিচালক মো. আসাদুল ইসলাম এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ইকোনোমিক  অ্যাফেয়ার্স উইংয়ের মহাপরিচালক মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম।

দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত করা এবং টেকসহ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হলে দক্ষিণ-দক্ষিণ সহযোগিতা জোরদার করা প্রয়োজন মর্মে সেমিনারে আলোচনা হয়। কৃষির উন্নয়ন ও খাদ্যশস্যের উৎপাদন বৃদ্ধি, নারী শিক্ষা সম্প্রসারণ, দুর্যোগ মোকাবিলা, নবায়নযোগ্য জ্বালানি, মাঠপর্যায়ে তথ্যপ্রযুক্তির সম্প্রসারণ, স্থানীয় উদ্যোগে কমিউিনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা সম্প্রসারণ ক্ষেত্রে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য সাফল্য রয়েছে, যা থেকে উন্নয়নশীল দেশ উপকৃত হতে পারে। তেমনিভাবে অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশের বিভিন্ন উন্নয়ন সমস্যার সফল সমাধান থেকে বাংলাদেশ উপকৃত হতে পারে।

সেমিনারে কৃষি মন্ত্রণালয় এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এক্সেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের পক্ষ হতে দক্ষিণ-দক্ষিণ সহযোগিতার উল্লেখযোগ্য সফল উদ্যোগের ওপর দুটি উপস্থাপনা পেশ করা হয়। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের উদ্যোগে দক্ষিণের দেশসমূহের অর্থ ও উন্নয়ন মন্ত্রীদের একটি ফোরাম গঠনের বিষয়েও সেমিনারে আলোচনা হয়।

 

বাংলাবিজনিউজ/আনোয়ার