: বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের ৮০০ কোটি টাকা চুরির ঘটনায় ২০ বিদেশি জড়িত বলে জানতে পেরেছে পুলিশের অপরাধ বিভাগ (সিআইডি)। 

বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থ হ্যাকিংয়ের এ ঘটনার সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের কিছু অসাধু কর্মকর্তাও জড়িত থাকতে পারে বলে সন্দেহ করছে গোয়েন্দা সংস্থাটি। 

সোমবার দুপুরে সিআইডি কার্যালয়ে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সংস্থার অতিরিক্ত উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) শাহ আলম এ কথা জানান।

তিনি বলেন, রিজার্ভ চুরির ঘটনা তদন্তের অংশ হিসেবে সিআইডির দু’টি টিম সংশ্লিষ্ট দুটি দেশ ফিলিপাইন ও

শ্রীলঙ্কায় যায়। এই অপরাধে ২০ জনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে। কিন্তু তদন্তের স্বার্থে কারও পরিচয় বলা যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে রিজার্ভ চুরি অসতর্কতার কারণে হয়েছে, নাকি কেউ এই অপরাধে জড়িত ছিল, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্টতার তথ্য সত্য হলে বিদেশিদের বিচারের আওতায় আনা যাবে কিনা কিংবা কীভাবে হবে সে বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রচলিত আইনেই যে কোনো বিদেশিকে জিজ্ঞাসাবাদের সুযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনে ইন্টারপোলের সহযোগিতাও পাওয়া যাবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের কোন লিংক থেকে এই চুরির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, সেটি এখন তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। 

ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুতে ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কে সঞ্চিত অর্থ থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার বা প্রায় ৮০০ কোটি টাকা চুরির ঘটনা তদন্ত করছে সিআইডি। 

চুরি হওয়া অর্থ থেকে এখন পর্যন্ত ২ কোটি ডলার উদ্ধার করা গেছে। 

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনের নেতৃত্বে গঠিত একটি কমিটিও এ ঘটনা তদন্ত করছে।

 

বাংলাবিজনিউজ/আনোয়ার