ব্যাংকগুলো যে পরিমাণ পরিচালন মুনাফা করে, তা থেকে সাড়ে ৪২ শতাংশ আয়কর, খেলাপি ঋণের বিপরীতে প্রভিশণ সংরক্ষণ, বিধিবদ্ধ সঞ্চিতি বা সংরক্ষিত রিজার্ভ এবং জেনারেল প্রভিশন রাখার পর বাকি অংশকেই প্রকৃত মুনাফা বলা হয়, যা থেকে শেয়ার হোল্ডারদের লভ্যাংশ দেয়া হয়।

ব্যাংকগুলো থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, প্রথম প্রজম্মের বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক ন্যাশনাল ব্যাংক তৃতীয় প্রান্তিকে নীট লোকসান করেছে ১৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকা, যেখানে আগের বছরের একই সময়ে মুনাফা করেছিল ১২৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা। আর ৯ মাসের হিসেবেও ব্যাংকটির মুনাফা কমে গেছে।
সরকারি ব্যাংক রূপালী ব্যাংকের তিন মাসে লোকসান হয়েছে ২৮ কোটি টাকা, যেখানে আগের বছরের একই সময়ে মুনাফা হয়েছিল সাড়ে ৭ কোটি টাকা। ব্যাংকটির নয় মাসের হিসেবেও প্রকৃত আয় কমে গেছে। গত বছরের প্রথম নয় মাসে প্রকৃত মুনাফা করেছিল  ৭৫ কোটি টাকা, এবছরে একই সময়ে তা কমে নেমেছে  ৪৩ কোটি ৯২ লাখ টাকায়।
ব্যাংক এশিয়ার আলোচ্য তিন মাসে নীট লোকসান হয়েছে ৪৬ কোটি ১২ লাখ টাকা, যেখানে আগের বছরের একই সময়ে প্রকৃত নীট আয় ছিল ৪২ কোটি ২ লাখ টাকা।
তিন মাসে লোকসান দেয়া আরেকটি ব্যাংক হলো সিটি ব্যাংক। ব্যাংকটি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে নীট লোকসান দিয়েছে ২৪ কোটি ৩৯ লাখ টাকা, যেখানে আগের বছরের একই সময়ে আয় হয়েছিল ৩৯ কোটি ১৯ লাখ টাকা।
মিউচুয়্যাল ট্রাস্ট ব্যাংকের তৃতীয় প্রান্তিকেস লোকসান হয়েছে ১ কোটি ৬৩ লাখ টাকা, যেখানে আগের বছরের একই সময়ে মুনাফা করেছিল ৫ কোটি ৫৫ লাখ টাকা।
তৃতীয় প্রান্তিকে প্রিমিয়ার ব্যাংকের প্রকৃত লোকসান হয়েছে ২৫ কোটি ২৮ লাখ টাকা, যেখানে আগের বছরের একই সময়ে আয় হয়েছিল ৫ কোটি ৭৩ লাখ টাকা।
ব্যাংকগুলো থেকে প্রাপ্ত তথ্যে দেখা গেছে, বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) এবি ব্যাংকের পরিচালন মুনাফার বিপরীতে আয়কর, প্রভিশন সংরক্ষণের পর প্রকৃত আয় হয়েছে ২৭ কোটি ৯৮ লাখ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৪৩ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। শুধু তিন মাসেই নয়, বছরের প্রথম নয় মাসেও প্রায় ৩৬ কোটি টাকা আয় কমে ১০১ কোটি ৫ লাখ টাকায় নেমেছে। আগের বছরের প্রথম নয় মাসে ব্যাংকটির প্রকৃত আয় ছিল ১৩৭ কোটি ৭৮ লাখ টাকা।
চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে ব্র্যাক ব্যাংকেরও নীট আয় কমে গেছে। এসময় ব্যাংকটি নীট আয় করেছে ৪২ কোটি ৫৭ লাখ টাকা, যেখানে আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৪৭ কোটি ৫৬ লাখ টাকা।
ঢাকা ব্যাংকের তিন মাসে নীট আয় কমেছে ৪১ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। গত বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে ব্যাংকটি আয় করেছিল ৬৩ কোটি ৩৬ লাখ টাকা, চলতি বছরের একই সময়ে তা কমে নেমেছে ২১ কোটি ৬৪ লাখ টাকায়।
ডাচ বাংলা ব্যাংকের ৪০ কোটি ৫৭ লাখ টাকা থেকে কমে তৃতীয় প্রান্তিকে ৩১ কোটি ৯৩ লাখ টাকায় নেমেছে। আর ইস্টার্ন ব্যাংকের প্রকৃত আয় আগের বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে ৫০ কোটি ৮৬ লাখ টাকা থেকে কমে  ৩৪ কোটি ৪৩ টাকায় নেমেছে।
গত বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে মার্কেনটাইল ব্যাংক নীট আয় করেছিল ১০৪ কোটি ৫৮ লাখ টাকা, এবার তা কমে নেমেছে ৯৫ কোটি ৩৩ লাখ টাকায়। আর এনসিসি ব্যাংকের তিন মাসে মুনাফা কমে নেমেছে ২ কোটি ১৮ লাখ টাকায়। ব্যাংকটি গত বছরের তৃতয়ি প্রান্তিকে মুনাফা করেছিল ৩ কোটি ৯৪ লাখ টাকা।
এছাড়া তৃতয়ি প্রান্তিকে ওয়ান ব্যাংকের প্রকৃত আয় ৩৩ কোটি ১৬ লাখ টাকা থেকে ১৪ কোটি ৫৯ লাখ টাকা, প্রাইম ব্যাংকের ৯০ কোটি ৮৬ লাখ টাকা থেকে কমে ৯০ কোটি ৩০ লাখ টাকা, পূবালী ব্যাংকের ৫১ কোটি ৯৮ লঅখ টাকা থেকে কমে ৯ কোটি ৮৩ লাখ টাকায়, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের ৩০ কোটি ৩ লাখ টাকা থেকে কমে ২৭ কোটি ২ লাখ টাকায়, ইউসিবিএল ব্যাংকের ৬৩ কোটি ৭২ লাখ টাকা থেকে সাড়ে ৯ কোটি টাকা এবং উত্তরা ব্যাংকের ২৯ কোটি ৫ লাখ টাকা থেকে কমে ১৭ কোটি ৯৫ লাখ টাকায় নেমেছে।