২০১৬-১৭ অর্থবছরের প্রথমার্ধের (জুলাই-ডিসেম্বর) মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হবে আ মঙ্গলবার। বাংলাদেশ ব্যাংকের জাহাঙ্গীর আলম সম্মেলন কক্ষে গভর্নর ফজলে কবির এ মুদ্রানীতি ঘোষণা করবেন। গভর্নরের দায়িত্ব নেয়ার পর এটিই তার প্রথম মুদ্রানীতি। রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ড. আতিউর রহমানের পদত্যাগের পর গত ২০ মার্চ গভর্নরের দায়িত্ব নেন ফজলে কবির।

 

জানা গেছে, নতুন মুদ্রানীতির ধরন হবে ‘প্রবৃদ্ধি সহায়ক ও বিনিয়োগবান্ধব’। জাতীয় বাজেটের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭.২ শতাংশ ও মূল্যস্ফীতি ৫.৮ শতাংশের মধ্যে রাখার লক্ষ্যমাত্রা থাকবে মুদ্রানীতিতে। এছাড়া বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি বাড়িয়ে ১৭ শতাংশের বেশি প্রাক্কলন করা হতে পারে।

২০১৫-১৬ অর্থবছরের শেষার্ধের মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি প্রাক্কলন করা হয়েছিল ১৪.৮ শতাংশ। কিন্তু পাঁচ মাসেই লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যায়। 

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত মে মাসের শেষে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি দাঁড়ায় ১৬.৪ শতাংশ। জুন শেষে তা সাড়ে ১৬ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে বলে ধারণা করছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্মকর্তারা।

নতুন মুদ্রানীতিতে নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টির সুযোগ থাকবে বলে জানা গেছে। বিশেষ করে ক্ষুদ্র, মাঝারি ও কৃষি খাতে ঋণের প্রবাহ বাড়াতে চায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। 

নির্বাচিত খাতে ক্ষুদ্র-মাঝারি, রফতানি ও উত্পাদনশীল এবং পরিবেশবান্ধব শিল্প স্থাপনে আগের চেয়ে বেশি অর্থ বা ঋণ দেয়ার পরিকল্পনা নতুন মুদ্রানীতিতে তুলে ধরা হবে। 

এছাড়া এলাকাভিত্তিক নারী উদ্যোক্তা ও সমাজের পিছিয়ে পড়া মানুষদের অর্থনীতির মূলস্রোতে নিয়ে আসার বিষয়টিও গুরুত্ব পাবে মুদ্রানীতিতে।

আগের মুদ্রানীতিতে ব্যাপক মুদ্রা জোগানের প্রবৃদ্ধি ধরা হয় ১৫ শতাংশ। এছাড়া রিজার্ভ মুদ্রার প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ছিল ১৪.৩ শতাংশ। 

নীতিনির্ধারণী সুদ রেপো ও রিভার্স রেপোর হার যথাক্রমে ৬.৭৫ ও ৪.৭৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছিল। নতুন মুদ্রানীতিতে এক্ষেত্রে সামান্য পরিবর্তন হতে পারে বলে জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ ব্যাংক প্রতি বছর দুবার মুদ্রানীতি ঘোষণা করে থাকে। একটি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে অর্থাৎ জুলাইয়ে ও অন্যটি ঘোষণা করা হয় জানুয়ারিতে। 

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ ও কাঙ্ক্ষিত প্রবৃদ্ধি অর্জনের মধ্যে ভারসাম্য রাখতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক প্রতি ছয় মাসের আগাম মুদ্রানীতি ঘোষণা করে। 

সরকার নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রাকে অগ্রাধিকার দিয়ে মুদ্রানীতিতে ঋণ ও মুদ্রার জোগান বাড়ানো বা কমানোর লক্ষ্য স্থির করা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র শুভঙ্কর সাহা নতুন মুদ্রানীতি প্রসঙ্গে বলেন, আগামী মঙ্গলবার গভর্নর মহোদয় নতুন অর্থবছরের প্রথমার্ধের মুদ্রানীতি ঘোষণা করবেন। এরই মধ্যে মুদ্রানীতি প্রণয়নের কাজ প্রায় সম্পন্ন হয়েছে।

 

বাংলাবিজনিউজ/আনোয়ার